Now Reading
চুলের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে শ্যাম্পুর নানাবিধ ব্যবহার

চুলের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে শ্যাম্পুর নানাবিধ ব্যবহার

শ্যাম্পু আমরা সব সময় ব্যবহার করি। কিন্তু একটু শ্যাম্পুর আরো ব্যবহার রয়েছে। চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে শ্যাম্পুর তুলনা অপরিসিহীম। তবে শ্যাম্পু দিতে বিভিন্ন সমস্যার সমাধান বেশ আগে থেকেই রয়েছে। কিন্তু আমরা হয়তো সেগুলোর ব্যবহার জানি না। চলুন তাহলে শ্যাম্পু দিয়ে কি কি সমস্যা সমাধান করা যায় তা দেখে নেওয়া যাক।

চুলের যত্নে খুব স্বাভাবিক একটি উপকরণ হলো শ্যাম্পু। তবে শুধু শ্যাম্পু যথেষ্ট নয়, বাড়তি পুষ্টি পাওয়ার জন্য অবশ্যই কিছু প্রাকৃতিক উপকরণ শ্যাম্পুর সঙ্গে মিশিয়ে নেওয়া যেতে পারে। চুল মজবুত করতে, ঝরে যাওয়া রোধ এবং দ্রুত বৃদ্ধিতে রেগুলার শ্যাম্পুর সঙ্গে ভেষজ উপাদান মিশিয়ে নিলে তা সুফলই দেবে।

লেবুর রস: প্রাকৃতিকভাবে এক্সফোলিয়েশন, অ্যান্টি-ফাংগাল ও অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন লেবু খুশকির মতো ফাংগাল ইনফেকশন নিরাময়ের সেরা উপায়। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ লেবু ক্লিনজিং হিসেবে বেশ ভালো কাজ করে। স্টাইলিংয়ের জন্য চুলে বিভিন্ন হেয়ার প্রডাক্ট ব্যবহার করা হয়, তাতে চুল নিস্তেজ হয়ে যায়। এসব স্টাইলিং উপকরণ ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিতে লেবুর রস সাহায্য করে।

মাথার ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূর করতে এটি বেশ কার্যকর। এটি অতিরিক্ত তেল দূর করে তেলগ্রন্থির কোনো ক্ষতি না করেই, যা কেমিক্যাল জাতীয় উপকরণ করে থাকে। খুশকি ও তৈলাক্ত মাথার ত্বক চুল পাতলা করে ফেলে আর ভঙ্গুর করে দেয়। তাই শ্যাম্পুতে নিয়মিত লেবুর রস ব্যবহার করলে চুলের স্বাস্থ্যকর বৃদ্ধি নিশ্চিত করা সম্ভব।

দুই টেবিল চামচ মাইল্ড ন্যাচারাল শ্যাম্পুর সঙ্গে এক টেবিল চামচ লেবুর রস ভালোভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। মাথার ত্বকে আলতো করে ম্যাসাজ করে নিন কিছুক্ষণ। এবার ভালো করে ধুয়ে নিন।

মধু: অপ্রক্রিয়াজাত মধু প্রাকৃতিকভাবে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি-ফাংগাল। তাই মাথার ত্বকে ব্যাকটেরিয়াজনিত সমস্যা হলে মধু ব্যবহারে তা নিরাময় সম্ভব। এটি একটি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, মাথার ত্বক সুস্থ রাখতে, ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে এবং চুলের আর্দ্রতা সৃষ্টিতে বেশ কার্যকর। মধু চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তাকারী ফলিকলের উন্নতিতে ভূমিকা রাখে। মধুর ঠিকঠাক ব্যবহার নিষ্প্রাণ ফলিকলকে সতেজ করে তুলতে পারে, যা চুলের বৃদ্ধি শতগুণ বাড়িয়ে দেয়।

আধা টেবিল চামচ অর্গানিক মধু দুই টেবিল চামচ শ্যাম্পুর সঙ্গে ভালোভাবে মিশিয়ে স্বাভাবিক নিয়মে শ্যাম্পু করে নিন। তবে প্রতিদিন মধু চুলে ব্যবহার করলে চুলের রঙ হালকা হয়ে যায়।

অ্যালোভেরা: বহুগুণ সমন্বিত অ্যালোভেরা চুল ঝরে যাওয়া, খুশকি ও মাথার ত্বকের শুষ্কতা প্রতিরোধে, ময়শ্চার ধরে রাখতে এবং আর্দ্রতার ভারসাম্য ঠিকঠাক রাখতে সক্ষম। যেকোনোভাবে এটি ব্যবহার করা যায় নিশ্চিন্তে। কারণ, এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

এক টেবিল চামচ তাজা অ্যালোভেরা জেল ও দুই টেবিল চামচ ন্যাচারাল শ্যাম্পু মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি ব্যবহারের পর ভালো করে চুল ধুয়ে নিন।

গোলাপজল: চুলের বৃদ্ধি বাড়াতে, মাথার ত্বক শীতল করতে ও খুশকি দূর করতে গোলাপজলের জুড়ি নেই। এটি চুল ও মাথার ত্বকের পিএইচ ভারসাম্য ঠিক রাখে।

এক টেবিল চামচ অর্গানিক গোলাপজলে ও দুই টেবিল চামচ শ্যাম্পু মিশিয়ে নিতে হবে। মিশ্রণটি ব্যবহার করুন।

গ্লিসারিন: ময়শ্চারকে চুলে লক করে দেয় গ্লিসারিন, যা শুষ্ক, রুক্ষ ও ক্ষতিগ্রস্ত চুলের জন্য জরুরি। চুল হাইড্রেট করে নিতে এটি আসাধারণ এক উপকরণ।

ন্যাচারাল শ্যাম্পুর সঙ্গে সামান্য পরিমাণে গ্লিসারিন মিশিয়ে স্বাভাবিক নিয়মে শ্যাম্পু করে নিন। ভালো করে চুল ও মাথার ত্বক ধুয়ে নিন।

See Also
মাথায় ঘাম জমতে দেবেন না, স্ক্যাল্প রাখুন তরতাজা

চিনি: শরীরের জন্য কিছুটা ক্ষতিকর হলেও চিনি শ্যাম্পুতে মিশিয়ে ব্যবহার করলে তা দেবে পরিষ্কার ও স্বাস্থ্যবান চুল। কেবল শ্যাম্পুতে চুলের চটচটে ভাব কমানো সম্ভব হয়ে ওঠে না। চিনির সঙ্গে শ্যাম্পুর ব্যবহারে সহজেই মাথার ত্বক পুরোপুরি পরিষ্কার করা সম্ভব।

দুই টেবিল চামচ শ্যাম্পুর সঙ্গে এক টেবিল চামচ চিনি মিশিয়ে নিন ভালোভাবে। এবার শ্যাম্পু দিয়ে ভালো করে চুল ধুয়ে নিন। তবে প্রতি চারবার শ্যাম্পু দিয়ে ধোয়ার পরপর এটি করে নিতে পারেন, যাতে ওভার এক্সফোলিয়েট না হয়ে যায়।

আমলকী: মাথার ত্বকের চামড়া ওঠা বা মৃতকোষ ও খুশকি দূর করতে বেশ পরিচিত আর কার্যকর আমলকী বা আমলা। এটি লোমকূপের মুখ উন্মুক্ত রাখতে সাহায্য করে। ফলে মাথার ত্বক প্রাকৃতিকভাবেই স্বাভাবিক তেল উৎপাদনের সুযোগ পায়। এটি চুলের বৃদ্ধিতেও সহায়ক।

আধা টেবিল চামচ আমলকীর রসে দুই টেবিল চামচ রেগুলার শ্যাম্পু মিশিয়ে ব্যবহার করুন।

এসেনশিয়াল অয়েল: রোজমেরি বা ল্যাভেন্ডার অয়েল সুগন্ধের জন্য বেশ পরিচিত। তবে খুশকি ও মাথার ত্বকের শুষ্কতা দূর করতে এর জুড়ি নেই। টি-ট্রি অয়েলও ভালো কাজ দেয়। এটি হেয়ার ফলিকলকে উদ্দীপিত করে। চুলের সুস্থতা, দ্রুত বৃদ্ধি ও দৃঢ়তায় এর ভূমিকা অসামান্য।

তিন থেকে পাঁচ ফোঁটা পছন্দের এসেনশিয়াল অয়েল দুই টেবিল চামচ হারবাল শ্যাম্পুতে মিশিয়ে ব্যবহার করুন

What's Your Reaction?
Excited
0
Happy
0
In Love
0
Not Sure
0
Silly
0
View Comments (0)

Leave a Reply

Scroll To Top