Now Reading
শিশুদের মধ্যে কৃমি – কারণ, লক্ষণ ও প্রতিরোধ

শিশুদের মধ্যে কৃমি – কারণ, লক্ষণ ও প্রতিরোধ

শিশুদের মধ্যে কৃমি – কারণ, লক্ষণ ও প্রতিরোধ

স্কুল যাওয়া শিশুদের মধ্যে পিনওয়ার্ম বা কৃমি সংক্রমণ বেশ সাধারণ এবং এগুলি শিশুদের মধ্যে খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এতে বাড়ির প্রাপ্ত বয়স্করাও সংক্রমিত হতে পারেযদি তারা কৃমির ডিমের সংস্পর্শে আসে। যথাযথ যত্ন এবং স্বাস্থ্যকর অভ্যাসগুলি এই কীটগুলির আরও ছড়িয়ে পড়া এবং আপনার সন্তানের অস্বস্তি আটকাতে সহায়তা করতে পারে।

কৃমি কী?

পিনওয়ার্ম বা কৃমি হল একধরনের কীটযা সাদা রঙের হয় এবং দুর্ঘটনাক্রমে এর ডিম পাকস্থলীতে প্রবেশ করার পরে মলদ্বার অঞ্চলে অবস্থান করে। কৃমির ডিমগুলি শরীরের বাইরে দুই থেকে তিন সপ্তাহ অবধি বেঁচে থাকতে পারে। একবার খাওয়ার পরে এগুলি অন্ত্রের মধ্যে প্রবেশ করে এবং পরিপক্ক মহিলা কৃমিগুলি রাতে মলদ্বারের দিকে সরে যায় এবং চুলকানি ও অস্বস্তি সৃষ্টি করে সেই অঞ্চলের ত্বকে ডিম পারে।

এই কীটগুলি কোন রোগের কারণ হিসাবে জানা যায় নাতবে গুলি খুব অস্বস্তি বোধ করায় এবং আপনার শিশুকে রাতে ঘুমাতে দেয় না।

কৃমিগুলি ২ থেকে ১২ মিমি আকারের হতে পারে এবং মানুষই এই কীটের একমাত্র প্রাকৃতিক বাহক। ডিমগুলি অবশ্য মাইক্রোস্কোপিক ও স্বচ্ছ এবং খালি চোখে দেখা যায় না।

শিশুদের মধ্যে পিনওয়ার্মের কারণগুলি

যেহেতু যে কেউ পিনওয়ার্মে সংক্রমিত হতে পারেপিনওয়ার্ম সংক্রমণের বেশ কয়েকটি সাধারণ কারণ নিম্নলিখিত ক্ষেত্রে দেখা যায়:

  • স্কুলে যাওয়া বয়সের শিশুদের বয়স ৫ থেকে ১০ বছর বয়সের মধ্যে শিশুদের কৃমি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এটি তখন ঘটে যখন কোন সংক্রামিত শিশু সংক্রামিত জায়গায় চুলকায় এবং ক্ষুদ্র স্বচ্ছ ডিম তার মাধ্যমে অন্য কোন শিশুর মুখের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করে। এগুলি খেলনা এবং অন্যান্য জিনিসগুলিতেও স্থানান্তরিত হতে পারে এবং সেগুলির মাধ্যমে অন্যান্য শিশুদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ে।
  • সংক্রামিত শিশুদের পরিবারের সদস্য এবং যত্নকারীদের সংক্রামিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
  • জনাকীর্ণ জায়গা বা এ জাতীয় অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে বসবাসকারী ব্যক্তিরা বেশি সংক্রমিত হয়।
  • যেসব শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্করা নিয়মিত হাত ধোয় না বা খাওয়ার আগে যারা সঠিকভাবে হাত ধোয় না।

শিশুদের মধ্যে কৃমির লক্ষণ

এটাও সম্ভব যে কিছু শিশু পিনওয়ার্ম সংক্রমণের কোনও লক্ষণ দেখায় না। তবেআপনি এই সাধারণ লক্ষণগুলির জন্য লক্ষ্য রাখতে পারেনযা সংক্রামিত শিশুদের মধ্যে উপস্থিত হয়:

  • পায়ু বা মলদ্বারের অঞ্চলে ঘন ঘন চুলকানি এবং অস্বস্তিবিশেষত রাতে
  • মলদ্বারের এলাকায় অস্বস্তির কারণে অস্থিরতা এবং ঘুমের অভাব
  • মলদ্বারকে ঘিরে র‌্যাশ বা ত্বকের জ্বালা
  • আপনার সন্তানের মলে বা মলদ্বারে দৃশ্যমান কৃমি বা পিনওয়ার্ম
  • নির্দিষ্ট সময়ে পেটে ব্যথা হয়
  • কখনও কখনও সংক্রামিত জায়গায় দৃঢ় ভাবে চুলকানোর ফলে অন্যান্য ব্যাকটিরিয়ার সংক্রমণ হতে পারে।

    রোগ নির্ণয়

    খোলা চোখে সহজেই কৃমি ধরা পড়ে। সুতরাংযদি আপনার সন্তানের নীচের অংশে বা মলের গায়ে সাদা কৃমি থাকে তবে সহজেই সংক্রমণ বোঝায় যায়। এটি পরীক্ষা করার সর্বোত্তম সময় হল আপনার শিশু সকালে ঘুম থেকে ওঠার সাথে সাথেইরাতে কীটগুলি মলদ্বার দিয়ে বেরিয়ে আসে। সাদা কৃমি পরীক্ষা করতে আপনি আপনার সন্তানের মলও পরীক্ষা করতে পারেন।

    কৃমিগুলি দৃশ্যমান না হলে চিকিৎসকরা টেপ পরীক্ষার পরামর্শ দিতে পারেন। এটি একটি সহজ পদ্ধতি যেখানে আপনাকে স্বচ্ছ টেপ নিতে হবে এবং এটি আপনার সন্তানের মলদ্বারের আশেপাশের অঞ্চলে আটকে দিতে হবে এবং এটিকে বাইরে টানতে হবে। এই অঞ্চলে জমা কোনও ডিম টেপটিতে আটকে থাকবে। এটি টানা তিনদিন সকালে করা উচিত এবং টেপগুলি চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া উচিতযিনি পরে তাদের মাইক্রোস্কোপের মাধ্যমে দেখতে পাবেন। এইভাবে পিনওয়ার্মের ডিমগুলি পরীক্ষা করা এবং সংক্রমণটি নিশ্চিত করা হয়।

    চিকিৎসা

    পিনওয়ার্মের জন্য মৌখিক ওষুধের মাধ্যমে চিকিৎসা করা হয়যা ওষুধ কাউন্টারে পাওয়া যায়। শিশুদের জন্য পিনওয়ার্মের ওষুধের প্রথম ডোজটির দুই সপ্তাহ পরে দ্বিতীয় ডোজটি দেওয়া হয়। অ্যালবেনডোজলমেবেনডোজল এবং পাইরেটেল পামোয়েট হল এই ক্ষেত্রে সাধারণ ওষুধ। যদি মাঝারি থেকে গুরুতর মাত্রার চুলকানি অসহনীয় হয়ে ওঠেতবে চুলকানি প্রশমিত করার জন্য ডাক্তার মলম এবং ক্রিম লিখে দিতে পারেন।

    See Also
    নবজাতকে স্তন পান করানোর সময় বিবেচনা করার জন্য 10 টি প্রয়োজনীয় পরামর্শ

    যেহেতু ডিমগুলি বাবামাযত্নকারী এবং পরিবারের সদস্যদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়েতাই শিশুটির সাথে নিয়মিত যোগাযোগে আসা সমস্ত লোককেই ওষুধ দেওয়া হয়।

    বাচ্চাদের মধ্যে পিনওয়ার্মের ঘরোয়া প্রতিকার

    প্রত্যেকের জন্য কাজ করে বলে প্রমাণিত না হলেওকয়েকটি ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে যা আপনি এই সংক্রমণের ক্ষেত্রে ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

    • কাঁচা রসুন: আপনি কাঁচা রসুন কাটাতে পারেন এবং এটি আপনার শিশুকে খেতে দিতে পারেন বা রুটি সহ এটি দিতে পারেন। আপনি রসুনের একটি পেস্টও তৈরি করতে পারেন এবং এটি কোন তেল বা পেট্রোলিয়াম জেলির সাথে মিশিয়ে মলদ্বারের আশেপাশে প্রয়োগ করতে পারেন।
    • নারকেল তেল: নারকেল তেল সংক্রমণ কমায় বলে জনপ্রিয়। আপনি সকালে আপনার শিশুকে এক চা চামচ খাঁটি নারকেল তেল দিতে পারেন এবং মলদ্বারেও নারকেল তেল প্রয়োগ করতে পারেন।
    • কাঁচা গাজর: এটি বিশ্বাস করা হয় যে এক কাপ কাঁচা গাজর খেলে অন্ত্রের গতি বাড়তে পারে এবং এর মধ্যে থাকা ফাইবার অন্ত্রের মধ্যে থাকা কৃমিগুলি বের করে দিতে সাহায্য করতে পারে। ফল এবং সবজিউভয় প্রকৃতির তন্তুযুক্ত হওয়ায় এটি অন্ত্রের গতিবিধির উন্নতির জন্য দুর্দান্ত।

      প্রতিরোধ

      বেশিরভাগ সংক্রমণের মতোইপিনওয়ার্মের সংক্রমণ রোধের মূল চাবিকাঠিটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সঠিক স্বাস্থ্যবিধি অভ্যাসের উপর নির্ভর করে। পিনওয়ার্মের প্রতিরোধে আপনি যে কয়েকটি পদক্ষেপ নিতে পারেন তা হল:

      • আপনার ত্বকে জমা হওয়া কোন ডিম পরিষ্কার করতে প্রতিদিন সকালে আপনার শিশুকে স্নান করান।
      • নখগুলিতে আটকে থাকতে পারে এমন কোন ডিম থেকে মুক্তি পেতে প্রতিদিন নখগুলি ছোট করে কেটে রাখুন এবং এগুলি স্ক্রাব করুন।
      • আপনার শিশুর অন্তর্বাস প্রতিদিন পরিবর্তন করার নিশ্চয়তা দিন।
      • আপনার শিশুর বিছানার চাদর ও তার অন্তর্বাসকে রোদে ঝুলিয়ে দিন কারণ পিনওয়ার্মের ডিমগুলি আলোর প্রতি সংবেদনশীল হয়ে থাকে।
      • আপনার শিশুকে নিয়মিত হাত ধোয়ার অনুশীলন শেখানবিশেষত খাওয়ার আগে।
      • আপনার সন্তানের নখ কামড়ানোর বা আঙুল চোষার অভ্যাস থাকলে তা কাটিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করুন।
      • কোন ডিম থেকে মুক্তি পেতে আপনার সন্তানের অন্তর্বাস গরম জলে ধুয়ে ফেলুন। আপনি আরও ঘন ঘন তার অন্তর্বাস ধুতে পারেন।
      • সংক্রামিত শিশুটির সাথে অন্য শিশুদের স্নান করাবেন না।
      • ডিম ছড়িয়ে পড়তে পারেতাই তার সাথে গামছা বা তোয়ালে ভাগ করবেন না।
      • আপনার শিশুকে তার মলদ্বারের অঞ্চলটি চুলকানো থেকে বিরত রাখার জন্য প্রায়ই মনে করিয়ে দিন।

      আপনার কখন ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত?

      আপনি যখন পিনওয়ার্মের প্রথম লক্ষণগুলি দেখতে শুরু করেন তখনই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা ভাল। একটি টেপ পরীক্ষা পরিচালনা করুন এবং একজন ডাক্তারের কাছ থেকে নিশ্চিত হোন। তবেআপনি যদি কোন ঘরোয়া প্রতিকারের চেষ্টা করার সিদ্ধান্ত নেনলক্ষণগুলি অব্যাহত থাকলে বা আপনি যদি দৃশ্যমান সাদা কৃমি দেখতে পান তবে আপনাকে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে। আপনি যদি প্রস্রাব বা মল থেকে রক্ত বেরোতে ​​দেখতে পান এবং আপনার শিশু পেটে ব্যথার অভিযোগ করেতবে তাকে এখনই ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান।

      পিনওয়ার্ম বা কৃমি অত্যন্ত সংক্রামক এবং এর চিকিৎসায় দেরি করা উচিত নয়। সময় মতো লক্ষণগুলি সনাক্ত করা এবং অস্বস্তি দূর করার জন্য আপনার সন্তানের সময়মতো চিকিৎসা করা গুরুত্বপূর্ণ।

What's Your Reaction?
Excited
0
Happy
0
In Love
0
Not Sure
0
Silly
0
Scroll To Top