Now Reading
শিশুদের মধ্যে বিছানায় প্রস্রাব করা(নক্টারনাল এনুরেসিস)

শিশুদের মধ্যে বিছানায় প্রস্রাব করা(নক্টারনাল এনুরেসিস)

শিশুদের মধ্যে বিছানায় প্রস্রাব করা(নক্টারনাল এনুরেসিস)

নক্টারনাল এনুরেসিস এমন একটি সমস্যা যা ছোট শিশুদের প্রভাবিত করে। তারা ঘুমের মধ্যে প্রস্রাব করে ফেলে এবং বাবা বা মা হিসাবেএটি নিয়ে খুব বেশি সতর্ক হওয়ার দরকার নেই। এটি একটি সাধারণ ঘটনা যা সঠিক যত্ন এবং ভালবাসা দিয়ে পরিচালনা করা যায়।

নক্টারনাল এনুরেসিস বা বেডওয়েটিং কি?

নক্টারনাল এনুরেসিস বা বেডওয়েটিং হল ঘুমের মধ্যে বিছানায় অনৈচ্ছিক প্রস্রাব তখন হয় যে বয়সের পরে সাধারণত মূত্রাশয়ে নিয়ন্ত্রণ চলে আসে। এটি একটি বিকাশগত বিলম্ব এবং এটি কোন সংবেদনশীল সমস্যা বা কোন শারীরিক অসুস্থতা নয়। ৫থেকে ১০বেডবয়েটিংয়ের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট চিকিত্সাসংক্রান্ত কারণে হয়। তবে এটি কোন পারিবারিক ইতিহাসের কারণেও হতে পারে।

বিছানা ভেজানো এমন অনেক বাচ্চা আছে যাদের বাবামাও একই বয়সে এটি করতেন। এই অবস্থাটি অনেক বাবামা বা ডাক্তার নির্ধারণের জন্য বিবেচনা করেন না যতক্ষণ না শিশুটি ৫ বছর বা তার চেয়ে বেশি বয়সী হয়। এনুরেসিস একটি সাধারণ সমস্যা যা শিশু এবং তাদের পরিবারের জন্য সমস্যার হতে পারে।

একটি শিশুর নক্টারনাল এনুরেসিস তার অন্তর্নিহিত কোন রোগ বা অসুস্থতার লক্ষণ হতে পারে।

নক্টারনাল এনুরেসিসের প্রধান লক্ষণগুলি হল:

  • বারবার বিছানা ভেজানো
  • পোশাকে প্রস্রাব করা
  • প্রায় তিন মাস ধরে কমপক্ষে সপ্তাহে দুই বার ঘুমের মধ্যে প্রস্রাব করা।

শিশুদের মধ্যে এনুরেসিস কতটা সাধারণ?

শিশুদের মধ্যে এনুরেসিস একটি সাধারণ সমস্যা। এটি ৫ বছর বা তার কম বয়সী প্রায় ৭ছেলে এবং ৩মেয়েদের মধ্যে হয়। এই সংখ্যাটি ১০ বছর বয়সী ছেলেদের মধ্যে ৩এবং মেয়েদের ২%-এ নেমে যায়। শিশুরা বেশিরভাগই তাদের কৈশোরে এই সমস্যা থেকে মুক্ত হয়ে যায়১৮ বছর বয়সে প্রায় ১ছেলেমেয়েদের এই ব্যাধিগ্রস্থ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

বেডওয়েটিংয়ের প্রকারগুলি

নক্টারনাল এনুরেসিস বা বিছানায় প্রস্রাব করার দুইটি প্রকার রয়েছে –

  • প্রাইমারি নক্টারনাল এনুরেসিস (পিএনই)

এটি বিছানা ভেজানোর সর্বাধিক সাধারণ রূপ। এর অর্থ হল শৈশবকাল থেকেই কোন বিরতি ছাড়াই বিছানা ভেজানো অবিচল রয়েছে। এটির পুনরাবৃত্তি হতে থাকে এবং সেই শিশুদের প্রভাবিত করে যারা কখনও রাতে ঘুমনোর সময় শুষ্ক থাকেনি। এগুলিকে প্রাথমিক নক্টারনাল এনুরেসিস বলা হয়যা কেবল রাত্রে ঘটে থাকেএবং অন্যদিকে ডিউরনাল এনুরেসিস হল যা দিনেরবেলা ঘটেযেমন প্রস্রাবের তীব্র প্রয়োজনীয়তাঘন ঘন হওয়া অথবা দিনের বেলা পোশাক বা বিছানা ভিজে যাওয়ার মতো ঘটনা ঘটে। এটি একটি উন্নয়নমূলক বিলম্ব যা সময়ের সাথে সমাধান হতে পারে। ডায়েটও শিশুদের মধ্যে এনুরেসিসকে প্রভাবিত করে ।

  • সেকেন্ডারি নক্টারনাল এনুরেসিস (এসএনই)

এটি পূর্ব যে শুকনো থাকতো এমন শিশুর ঘুমের সময় অনৈচ্ছিক প্রস্রাব করাকে বোঝায়। এটি মূত্রাশয়ের সংক্রমণের কারণে হতে পারে।

বেডওয়েটিংয়ের কারণ

নক্টারনাল এনুরেসিসের কারণগুলি নিম্নরূপ:

প্রাইমারি নক্টারনাল এনুরেসিস

প্রাইমারি বেডওয়েটিং এমন একটি সমস্যাযেখানে শিশুটি রাতের বেলা কখনই তার মূত্রাশয়ে নিয়ন্ত্রণ পায়নি। এখানে কয়েকটি কারণ রয়েছে:

  • শিশুর শরীরে এখনও মূত্রাশয়ের সমস্যা রয়েছে
  • সারা রাত ধরে শিশু প্রস্রাব নিয়ন্ত্রণ করতে অক্ষম হয়
  • শিশুর মূত্রাশয় পূর্ণ হয়ে উঠলেও সে জেগে ওঠে না
  • সন্ধ্যা ও রাতে শিশু উল্লেখযোগ্য পরিমাণে প্রস্রাব করে।
  • শিশুর প্রস্রাব করার খারাপ অভ্যাস থাকতে পারে। শিশুরা দীর্ঘ সময় ধরে প্রস্রাবের তাড়না অনুভব করে না এবং প্রস্রাব চেপে রাখে। অভিভাবকরা মুখের টান পড়াচোখমুখ কোঁচকানোউবু হয়ে থাকা বা পেট টিপে রাখা ইত্যাদি বিভিন্ন অভিব্যক্তি সম্পর্কে সচেতন হবেন যা শিশুরা প্রস্রাব আটকে রাখার জন্য ব্যবহার করে।
  • ক্যাফিন এবং মূত্রবর্ধক জিনিসের ব্যবহারের কারণে প্রস্রাবের উত্পাদন বৃদ্ধি পায়
  • দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য এবং প্যান্টে মলত্যাগ করা।

    গৌণ বা সেকেন্ডারি বেডওয়েটিং

    সেকেন্ডারি বেডওয়েটিং হল সেই অবস্থা যখন শিশুটি কমপক্ষে ১২ মাস এটি না করে আবার বিছানা ভিজিয়ে ফেলে। শিশুর বয়স বাড়ার সাথে সাথে এর প্রকোপগুলি বাড়তে থাকে। এর কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

    See Also
    শিশু মুখের মধ্যে হাত ঢোকায় – কারণ এবং মোকাবিলা করার উপায়

    • মূত্রনালীর সংক্রমণএর ফলে জ্বালা হয়প্রস্রাবের দৃঢ় তাড়না অনুভব হয় এবং ঘন ঘন প্রস্রাব হয়। সংক্রমণ কিছু শারীরিক অস্বাভাবিকতার কারণেও হতে পারে।
    • ডায়াবেটিসযার ডায়াবেটিস রয়েছে তার প্রস্রাব ত্যাগ করার পরিমাণ বাড়বে।
    • শারীরবৃত্তীয় অস্বাভাবিকতাএগুলি অঙ্গপেশী বা স্নায়ু বা মূত্রথলিতে অন্য কোন অস্বাভাবিকতার কারণে হতে পারে।
    • একটি স্নায়বিক সমস্যাস্নায়ুতন্ত্রের যদি কোন ত্রুটিআঘাত বা রোগ থাকে তবে এটি স্নায়বিক ভারসাম্যহীনতা সৃষ্টি করতে পারে যা প্রস্রাবকে প্রভাবিত করে।
    • সামাজিক বা মানসিক চাপবাবামায়ের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে পারিবারিক জীবনে চাপের কারণে বাচ্চারা বিছানা ভেজাতে পারে। জীবনযাত্রার পরিবর্তনগুলিযেমন স্কুলে যাওয়া শুরু করা বা বাড়ি পরিবর্তন বিছানা ভেজানোর কারণ হতে পারে। যেসব শিশুরা শারীরিক বা যৌনভাবে নিপীড়িত হয় তারা ঘুমের মধ্যে প্রস্রাব করা শুরু করে।
    • জিনতত্ত্বএনুরেসিস জেনেটিকও হতে পারেযার অর্থ যদি কোন বাবা বা মায়ের এই সমস্যা থাকে তবে তাদের সন্তানেরও একই সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে।

    নক্টারনাল এনুরেসিস বিকাশের ক্ষেত্রে ঝুঁকির কারণসমূহ

    প্রাইমারি বেডওয়েটিং –ছেলেদের মধ্যে মেয়েদের চেয়ে প্রাইমারি বেডওয়েটিং বেশি দেখা যায়। ১৫শিশুরা প্রতি বছর বিছানা ভেজানো থেকে অল্প অল্প করে মুক্তি পেতে থাকে।

    • প্রাইমারি বেডওয়েটিংয়ের জেনেটিক কারণ রয়েছে।
    • কিছু মানুষ জেগে থাকার সময় দুর্ঘটনাক্রমে প্রস্রাব করতে পারে। এটি কিছু শারীরিক সমস্যার সাথে সম্পর্কিত হতে পারে।
    • যে সকল শিশুদের মনোযোগে ঘাটতি থাকে এবং হাইপারঅ্যাকটিভ হয়তারা বিছানা ভেজাতে পারে।
    • যে শিশুরা অগোছানো পরিবারে বাস করে।

    সেকেন্ডারি বেডওয়েটিং 

    • পারিবারিক সমস্যা যেমন বাবামায়ের বিবাহবিচ্ছেদ বা মৃত্যু।
    • শারীরিক নির্যাতন এবং অবহেলা
    • তাদের মধ্যে বিভ্রান্তিকর উত্তেজনা” নামে পরিচিত একটি ব্যাধিও থাকতে পারেযেখানে সে গভীর ঘুমের সময় ঘুম থেকে জেগে ওঠে। এটি শিশুকে একটি অদ্ভুত জায়গায় প্রস্রাব করতে বাধ্য করতে পারে। সেকেন্ডারি বেডওয়েটিং যেকোন বয়সেই ঘটে।
    • রোগ নির্ণয়

    এনুরেসিস সঠিকভাবে নির্ণয়ের জন্যকারণগুলি অনুসন্ধান করার জন্য একটি সম্পূর্ণ মেডিকেল পরীক্ষা করে সম্পূর্ণ ইতিহাস নেওয়া উচিত।

    • এনুরেসিসের কারণগুলির মধ্যে মেরুদণ্ডের কর্ডের অস্বাভাবিকতা (নিউরোজেনিক মূত্রাশয়মূত্রনালীর সংক্রমণ এবং ছেলেদের মধ্যে পোস্টেরিয়র মূত্রনালী ভালভ এবং মেয়েদের অ্যাক্টোপিক ইউরেটারএর সাথে জড়িত থাকতে পারে। পাশাপাশিযে শিশুরা দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য এবং এনকোপ্রেসিসে আক্রান্ত হয় (অনিচ্ছাকৃতভাবে প্যান্টে মলত্যাগ করা)
    • শিশুর পারিবারিক ইতিহাসজিনেটিক্স এবং চিকিত্সার ইতিহাস সম্পর্কে যত্নশীল হওয়া ও বিস্তারিত প্রশ্ন থাকা উচিত। এটি এনুরেসিসের ধরণ এবং এটির সম্ভাব্য কারণ নির্ধারণে সহায়তা করে।
    • প্রায়শই বাবামায়েরা তাদের সন্তানের বিছানা ভেজানোর অভ্যাস সম্পর্কে পুরোপুরি সচেতন হন না। পরামর্শ দেওয়া হয় যে দিনের বেলা এবং রাতে শিশুটি কতবার বিছানা ভিজিয়ে ফেলে তা খতিয়ে দেখার জন্য তারা একটি ডায়েরি বজায় রাখুন।
    • শিশুটির শারীরিক পরীক্ষা করতে হয়। তবে চিকিত্সকের অন্য যে কোন সমস্যা যা বিছানায় প্রস্রাবের কারণ হতে পারে তা যাচাই করা দরকার।
    • ইউরিনালাইসিস করা উচিতকারণ এটি মূত্রের যে কোন সংক্রমণকে হাইলাইট করতে সহায়তা করে। যদি ফলাফল কোন রোগ নির্দেশ করেতবে আর ভালোভাবে ক্ষতিয়ে দেখা উচিত (সিস্টোরিথ্রোগ্রাম এবং রেনাল আল্ট্রাসাউন্ড দ্বারা)
    • বিছানা ভেজানো খুব মানসিক চাপের কারণ হতে পারে। তবে কিছু সময় পরেই এটি নিজে থেকে দূরে চলে যায়। এটি শিশুর জন্য বিব্রত ও অপরাধবোধ সৃষ্টি করেযা মানসিক উদ্বেগের দিকে নিয়ে যায়। এই সময়ে বাবামাকে শিশুদের মানসিক সহায়তা প্রদান করা উচিত।

    আপনি যদি ভাবছেন যে কোন শিশু কখন বিছানা ভেজানো বন্ধ করে দেয়সাত বছর বয়সের আশেপাশে প্রায় ৯০শিশুদের নিজে থেকেই বিছানা ভেজানো বন্ধ হয়ে যায়। বেশিরভাগ চিকিত্সকরা সাধারণত সাত বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য বিছানা ভেজানোর চিকিত্সার পরামর্শ দেন না। কারণ ঘুমের সময় ব্লাডার কন্ট্রোল ফাংশন বা মূত্রাশয় নিয়ন্ত্রণ হল পটি ট্রেনিংয়ের শেষ পর্যায়। সুতরাংশিশুরা শেখার প্রক্রিয়া চলাকালীন ঘুমের সময় বিছানা ভিজিয়ে দিতে পারে।

    এনুরেসিসের কারণগুলির মধ্যে মেরুদণ্ডের কর্ডের অস্বাভাবিকতা (নিউরোজেনিক মূত্রাশয়মূত্রনালীর সংক্রমণ এবং ছেলেদের মধ্যে পোস্টেরিয়র মূত্রনালী ভালভ এবং মেয়েদের অ্যাক্টোপিক ইউরেটারএর সাথে জড়িত থাকতে পারে। পাশাপাশিযে শিশুরা দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য এবং এনকোপ্রেসিসে আক্রান্ত হয় (অনিচ্ছাকৃতভাবে প্যান্টে মলত্যাগ করা)

 

What's Your Reaction?
Excited
0
Happy
0
In Love
0
Not Sure
0
Silly
0
Scroll To Top