Now Reading
খরচ কমান, টাকা বরাদ্দ করুন স্বাস্থ্যবিমা খাতে

খরচ কমান, টাকা বরাদ্দ করুন স্বাস্থ্যবিমা খাতে

খরচ কমান, টাকা বরাদ্দ করুন স্বাস্থ্যবিমা খাতে

বুঝতেই পারছেন নিশ্চয়ই যে আগামীদিনে, বিশেষ করে সামনের দু’বছর পরিস্থিতি খুবই কঠিন হতে চলেছে? সাংসদদের ভাতা এক ধাক্কায় 30 শতাংশ কমিয়ে রাস্তা দেখিয়েছে সরকার, আগামী দু’বছর এমপিল্যাড অর্থাৎ এলাকা উন্নয়নখাতে তাঁরা যে টাকা পেতেন, তাও বন্ধ। কর্পোরেটগুলিও যে এই পথই অনুসরণ করতে চলেছে, তা বলাই বাহুল্য! তাই এই পরিস্থিতিতে টিকে থাকতে গেলে আপনাকেও খরচপত্র কমাতে হবে, সেই সঙ্গে খুঁজে বের করতে হবে এমন ক্ষেত্র যেখানে টাকা রাখা আবশ্যক। কীভাবে তা করবেন?

একটা ব্যাপারে অধিকাংশ ফাইনানশিয়াল প্ল্যানারই একমত যে, আজ সরকার যে যে খাতে আর্থিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে, তার দায়ভারও সম্ভবত আগামীদিনে মধ্যবিত্ত চাকুরিজীবী শ্রেণির ঘাড়েই চাপতে চলেছে। তাই খুব সাবধানে পা ফেলুন, বেঁচে থাকার জন্য যতটুকু দরকার তার বেশি খরচ করবেন না। রিস্ক ম্যানেজার আশিস কুমার দাস বলছেন, ”সেই সঙ্গে সুনিশ্চিত করুন আপনার ‘লাইফ অ্যান্ড হেলথ’। অর্থাৎ, জীবনবিমা করান, মেডিক্লেম করা কতটা গুরুত্বপূর্ণ, তা বোঝার চেষ্টা করুন। আপনি যে সংস্থাতেই চাকরি করুন, সেখানে যত ভালো মেডিক্লেম কভারেজ থাক না কেন, চাকরিতে ঢুকেই ব্যক্তিগত মেডিক্লেম করাটা একান্ত জরুরি। হঠাৎ কর্মহীন হলেও অসুবিধে হবে না। মনে রাখবেন, যত কম বয়সে মেডিক্লেম করবেন, তত বেশি সুবিধে পাবেন। সেই সঙ্গে নিয়মিত তা টপ আপ করাও জরুরি।”

বামধ্যে মেডিক্লেম বিষয়ে একটা উদাসীনতা কাজ করে, যেহেতু তার রিটার্নটা চোখে দেখা যায় না। দ্বিতীয় যে সমস্যাটা হয়, তা হচ্ছে ক্লেম করার সময় কোম্পানিগুলি নানা ফ্যাকড়া তৈরি করে, অনেক সময়েই পুরো টাকাটা মেলে না। আশিস বলছেন, “এর দায়ও কিন্তু যাঁরা পলিসি করছেন তাঁদের উপরেই বর্তায়, কারণ তাঁরা গোড়াতেই সমস্ত সত্যিটা খোলাখুলি বলেন না। যাঁর 10 বছর সুগার আছে, তিনি বলবেন তিন বছর আছে, বয়স কমাবেন… এই সব সমস্যা থেকেই ক্লেম সংক্রান্ত সমস্যাগুলি হয়। চেষ্টা করলেই তা এড়ানো সম্ভব।”

এবার প্রশ্ন, খরচ কীভাবে কমাবেন? প্রথমত, বাহুল্য একেবারে বাদ। স্রেফ প্রয়োজনীয় খরচটুকু করুন। খাওয়াদাওয়ায় বিলাসিতা চলবে না, বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান থাকলে শিকেয় তুলে রাখুন। একান্ত প্রয়োজন না থাকলে জামাকাপড়ও কিনবেন না। কাটছাঁট করুন উপহারের বাজেটেও। বাইরে থেকে হুটহাট খাবার বা কফি আনাবেন না। অফিসের কাজে বাইরে গেলেও যথাসাধ্য কম খরচ করুন।

See Also

রূপচর্চার ক্ষেত্রেও বাজেট কমান। ভরসা রাখুন মা-দিদিমার ঘরোয়া সমাধানে। সুস্থ থাকুন, ফল-সবজি খান বেশি করে। ব্যায়াম করুন। শরীর-মন সুস্থ থাকলে পরিস্থিতির সঙ্গে অনায়াসে লড়া যাবে। পরিবারের সঙ্গে থাকুন, ভালো থাকুন।

What's Your Reaction?
Excited
0
Happy
0
In Love
0
Not Sure
0
Silly
0
Scroll To Top