ডিপ্রেশন কমাতে বা মন ভাল রাখতে ৯টি ডায়েট অভ্যাস গড়ে তুলুন

ডিপ্রেশন কমাতে বা মন ভাল রাখতে ৯টি ডায়েট অভ্যাস করুন

নারী কিংবা পুরুষ উভয়ে অনেক ধরনের ডিপ্রেশনে ভুগে থাকি প্রত্যহ। ডিপ্রেশন বা বিষণ্নতা যাই বলুন এ থেকে মুক্তির ৯টি ডায়েট রয়েছে। যা নিয়মিত অনুসরণ করলে আমরা সুস্থ হয়ে উঠবো তাড়াতাড়ি

বর্তমান লাইফস্টাইলে ডিপ্রেশন সাধারণ ঘটনা হলেও, তার ফল কিন্তু মারাত্মক হতে পারে। ডায়েটের মাধ্যমে ডিপ্রেশনকে কাবু করার পরামর্শে বিশেষজ্ঞ ডায়েটিশিয়ান।

১. ডায়েটে কার্বোহাইড্রেটের পরিমাণ কম থাকলে সেরোটোনিন এবং ট্রিপটোফ্যানজাতীয় কেমিকালের পরিমাণ কমে যায়। এর ফলে মানসিক অবসাদ দেখা দিতে পারে। তাই ডায়েটে বেশি পরিমাণে ফল, সবজি, হোল গ্রেনের মতো ‘স্মার্ট কার্বোহাইড্রেট’ রাখুন। এগুলো ধীরে ধীরে রক্তে কার্বোহাইড্রেটের পরিমাণ বাড়াতে সাহায্য করে, যা ব্রেনকে সেরোটোনিন হরমোনের ক্ষরণে সাহায্য করে। অন্যান্য মিষ্টিজাতীয় খাবারের তুলনায় এই খাবারগুলো থেকে প্রাপ্ত কার্বোহাইড্রেট অনেকক্ষণ রক্তে শুগারের মাত্রা সঠিক রাখে। ফলে বার বার কার্বোহাইড্রেট খাওয়ার প্রয়োজন হয় না।

২. ডায়েটে অ্যামাইনো অ্যাসিডের পরিমাণ কম থাকলে, ডোপামিন এবং সেরোটোনিনের মতো নিউরোট্রান্সমিটার, যা মন ভাল রাখতে সাহায্য করে, তা কম উৎপন্ন হয়। ব্রেনের এই দুই কেমিক্যালের পরিমাণ সঠিক রাখতে প্রোটিন-রিচ খাবার খাওয়াও তাই একান্ত জরুরি। কার্বোহাইড্রেটের সঙ্গে ডেয়ারি প্রডাক্ট, ডিম, বিনস ইত্যাদিও ডায়েটে রাখুন।

. আমাদের মস্তিষ্কে ফ্যাটের ঘনত্ব সব থেকে বেশি। মস্তিষ্কের কোষে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩ এবং ওমেগা-৬ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে। ডায়েটে পর্যাপ্ত পরিমাণে আখরোট, ফ্ল্যাক্স সিড, ক্যানোলা অয়েল, সামুদ্রিক মাছ বা ফিশ লিভার অয়েল থাকলে তা মস্তিষ্কে ফ্যাটের সরবরাহ অক্ষুণ্ণ রাখে। ফলে মনও ভাল থাকে।

. বিনস, লিন মিট, বাদামে থাকা সেলেনিয়াম মুড ভাল রাখতে এবং অ্যাংজ়াইটি কমাতে সাহায্য করে। ডায়েটে এই ধরনের খাবার বেশি করে রাখতে পারেন।

. মন খারাপ লাগলে ডার্ক চকোলেট খেতে পারেন। এক টুকরো ডার্ক চকোলেট সেরোটোনিন এবং এন্ডরফিনের মতো ‘ফিল গুড’ হরমোনের পরিমাণ বাড়াতে সাহায্য করবে। ভিটামিন ডি-ও এই ধরনের হরমোন তৈরির জন্য আবশ্যক। প্রতি দিন কিছুক্ষণ রোদে থাকলে উপকার পাবেন।

. শরীরে জ়িঙ্কের ঘাটতি থাকলে খাবার বিস্বাদ লাগতে পারে, এমনকী ডিপ্রেশনও দেখা দিতে পারে। কুমড়োর বীজ, ডিম, মাছ, চিকেন খেতে পারেন। এতে পর্যাপ্ত পরিমাণে জ়িঙ্ক থাকে যা ডিপ্রেশন কমাতেও সাহায্য করবে।

. শরীরে এনার্জি বাড়াতে ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স অত্যন্ত প্রয়োজনীয় উপাদান। যাঁরা প্রতিনিয়ত অ্যাংজ়াইটি কিংবা স্ট্রেসের সম্মুখীন হন, তাঁদের জন্য ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স দারুণ কার্যকরী। অ্যান্টি-ডিপ্রেসেন্ট হিসেবেও ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স ভাল। ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ভিটামিন বি-১২ এবং ফোলেটের সাপ্লিমেন্ট নিলে উপকার পাবেন।

. অশ্বগন্ধা, এলাচ, ব্রাক্ষ্মীশাক, হলুদ ইত্যাদিও মন শান্ত করতে সাহায্য করে।

. লাইফস্টাইলের দিকেও নজর দিন। অ্যালকোহল, কফি, ড্রাগস ইত্যাদি ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়। এতে বিভিন্ন অ্যান্টি-ডিপ্রেসেন্টের কার্যকারিতাও কমে যায়। এই ধরনের আসক্তি থেকে দূরে থাকুন।

What's Your Reaction?
Excited
0
Happy
0
In Love
0
Not Sure
0
Silly
0
View Comments (0)

Leave a Reply

Scroll To Top